আগুনের পরশমণি

মৃত্যুর ছায়াঢাকা বাড়িটার ভেতর আর বসে না থাকতে পেরে বাইরে বেরিয়ে এল ঋজু| ঘড়ির কাঁটা সাড়ে পাঁচটা বললেও এর মধ্যেই মোটামুটি অন্ধকার হয়ে এসেছে চারপাশে| ত্রিফলা আলোগুলো জ্বলে উঠছিল এক এক করে| তবে রাস্তার আলো জ্বললেও আজ ঋজুর জীবনে একটা আলো চিরতরে হারিয়ে গেছে|

-সরি স্যার, উনি আর নেই|

কটা মাত্র শব্দ| কিন্তু তাই মানুষকে ভেঙে ফেলার জন্যে যথেষ্ট| আত্মীয়স্বজন মারা গেলে যত না কষ্ট, নিজের আপন দাদা চলে গেলে তার চতুর্গুণ| তাও আবার সেই দাদা যদি হয় নিজের ধ্যান জ্ঞান মান| চাকুরিরত বাবামায়ের সময় ছিল না ছোটছেলেকে দেখার| অগত্যা ঋজুকে সামলানোর পুরো দায়িত্ব এসে পড়ে রূপমের ওপর| খুশি মনে যে লোকটা মেনে নিয়েছে তার সমস্ত আবদার, পাশে থেকে হাত ধরে তাকে পথ চলা শিখিয়েছে, তাকে আর দেখা যাবে না ভাবতেই জ্বালা করছিল চোখদুটো|

নাহ্, আর দাঁড়াল না ঋজু| বলা ভাল, দাঁড়াতে পারল না| দাদার স্মৃতিজড়িত বাড়িটার থেকে যতটা সম্ভব দূরে যেতে চায় সে| আচ্ছন্নের মতন হাঁটতে লাগল মেন রোড ধরে| পাশ দিয়ে যে হুশ হুশ করে গাড়ি বেরিয়ে যাচ্ছে সেদিকে যেন খেয়ালই নেই তার|

আগুনের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে…
গমগমে গানের লাইনটা কানে আসতে সম্বিত ফিরল ঋজুর| সামনেই বিরাট শপিং মল| ঝলমলে আলোয় সাজা মাল্টিপ্লেক্সের পরতে পরতে যেন দীপাবলীর আগমনী| তার ঠিক নিচেই বসেছে বাজির বাজার| আমোদপ্রিয় বাঙালীর বাজি কেনার ব্যস্ততা তুঙ্গে|

-না না এভাবে নয়, আগের অঙ্কটার মতন করে কর|
কানে কথাটা আসতে ঘুরে তাকিয়ে দেখল ঋজু| ফুটপাথের ওপর ছেঁড়া চালের বস্তা পেতে বসে একটি দশ-বারো বছরের ছেলে, তার সামনে বসে আরও চার-পাঁচজন| পড়াচ্ছে না কি? হ্যাঁ ঠিক, ওই তো, খাতার ওপর লেখা- দশমিকের ব্যবধান.…
অনুভব করল ঋজু, তার মধ্যে জমে থাকা কষ্টটা ক্রমশ পরিণত হচ্ছে উপলব্ধিতে| দীপাবলী| অন্ধকার তাড়ানো আলোর উত্সব| একটা জীবন চলে গেল তো কি হয়েছে, এই অন্ধকারের মধ্যেও পাঁচটা নতুন জীবনকে আলো দিতে ব্যস্ত একজন| যে আলো নেভার নয়| নিজের অজান্তে সে কখন ওদের সামনে গিয়ে দাঁড়িয়েছে সেও টের পায়নি| পকেট হাতড়ে  যে কটা টাকা পেল সব বের করে বাড়িয়ে দিল ছেলেটার দিকে|

-এই নে, এটা দিয়ে বাচ্চাগুলোকে কিছু খাতা পেন্সিল কিনে দিস|
-আচ্ছা স্যার, বলে বাচ্চাগুলোর দিকে ঘুরে বলল, এই তোরা স্যারকে সবাই থ্যাঙ্ক ইউ বল|

আধো আধো কচি গলার কতগুলো অসংলগ্ন ধন্যবাদ ভেসে এল ঋজুর দিকে|

 

Advertisements

2 thoughts on “আগুনের পরশমণি

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s